আজহারীর পোস্ট মুছে দিল ফেসবুক, প্রতিবাদে পাল্টা স্ট্যাটাস

সম্প্রতি ধর্মীয় বক্তা মিজানুর রহমান আজহারীর একটি ফেসবুক স্ট্যাটাস মুছে দিয়েছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডের ব্যত্যয় ঘটায় ফেসবুক এমনটা করেছে বলে আরেকটি স্ট্যাটাসে আজহারী নিজেই জানিয়েছেন। ২৫ নভেম্বরের ওই স্ট্যাটাসে আজহারী দাবি করেছেন কোনো ধর্মের বা ব্যক্তির নাম উল্লেখ করেননি তিনি।

এর আগে আজহারী গত ১৫ নভেম্বর ‘ধর্মীয় স্বতন্ত্রতা, স্বকীয়তা ও পরিমিতিবোধ’ শীর্ষক একটি স্ট্যাটাস শেয়ার করেন। সেখানে তিনি অন্য ধর্মের কার্যকলাপে মুসলিমদের অংশগ্রহণ ধর্মীয় সম্প্রীতি নয় এমন বক্তব্য দেন। সেই পোস্টটিই মুছে দেয় ফেসবুক। পরবর্তীতে (২৫ নভেম্বর) পোস্ট রিমুভ করার জন্য নতুন আরেকটি স্ট্যাটাস দেন আজহারী।

সেখানে তিনি বলেন, ‘স্ট্যাটাসটিতে কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি এবং কোনো ব্যক্তি কিংবা ধর্মকেও এখানে হেয় করা হয়নি।’

সময়নিউজের পাঠকদের জন্য মিজানুর রহমান আজহারী স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

কয়েকদিন আগে আমার লেখা ‘‘ধর্মীয় স্বতন্ত্রতা, স্বকীয়তা ও পরিমিতিবোধ” শিরোনামের স্ট্যাটাসটি, ফেইসবুক অথোরিটি তাদের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডের ব্যত্যয় দেখিয়ে, আমার পেইজ থেকে রিমোভ করে দিয়েছে।

স্ট্যাটাসটিতে কারো নাম উল্লেখ করা হয়নি এবং কোনো ব্যক্তি কিংবা ধর্মকেও এখানে হেয় করা হয়নি। পোস্টটিতে কেবল ধর্মীয় সম্প্রীতি ও সহাবস্থান বলতে কি বুঝায়, ধর্মীয় সম্প্রীতির সীমারেখা এবং মুসলিম হিসেবে আমাদের করণীয় সম্পর্কে ব্যাখ্যা করা হয়েছিল। কিন্তু এটাকেও ফেইসবুক অথোরিটি “হেইট স্পীচ এন্ড ইনসাল্ট” হিসেবে ট্রিট করেছে।

এভাবে চলতে থাকলে তো স্বাধীনভাবে মতামত প্রকাশ, ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে কোনো পরিস্থিতিকে বিশ্লেষণ কিংবা আমাদের করণীয় বর্জনীয় এর ব্যাপারে ভবিষ্যতে ফেইসবুকে কিছু লেখাও কঠিন হয়ে যাবে।

নাস্তিকদের পরিচালিত বিভিন্ন ফেইসবুক আইডি ও পেইজে, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে ইসলাম ও রাসুলুল্লাহ (ﷺ‬) কে নিয়ে ইচ্ছামত হেইটস্পীচ, কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য এবং নানা ধরনের কার্টুন শেয়ার দেয়া হয়। আফসোস! সেগুলো ফেইসবুক অথোরিটির চোখে পড়ে কিনা জানিনা। ফেইসবুকের উচিত তাদের কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ডটিকে প্রোপার জাস্টিফিকেশন এন্ড ইকুয়াল ট্রিটমেন্টের আলোকে পূনর্বিন্যাস করা।

যাইহোক, ফেইসবুক অথোরিটি আমার বক্তব্যকে মিস আন্ড্যারস্টোড করেছে জানিয়ে, আমি রিভিউর জন্য এ্যাপিল করেছি। দেখা যাক, ওয়াট দেই রিসপন্ড।

Author: hasib

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *